Also read in

গুয়াহাটি-ডিব্রুগড়ে সিজিএইচএস ইউনিট রয়েছে, শিলচর বাদ কেন? সংসদে প্রশ্ন রাজদীপের; বাংলায় ভাষণ দিয়ে বিশেষ বার্তা

সেন্ট্রাল গর্ভনমেন্ট হেলথ স্কিম, সংক্ষেপে সিজিএইচএস। কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারিদের জন্য স্বাস্থ্য-পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের বীমা যোজনা। অবসরপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীরাও পড়েন এই স্বাস্থ্যবীমার আওতায়, সেটি হচ্ছে ইসিএইচএস। মন্ত্রকের প্যানেলভুক্ত বেসরকারি হাসপাতাল, ডায়াগনেস্টিক সেন্টার থেকে বিনামূল্যে পরিষেবা পাওয়া যায় সিজিএইচএস এবং ইসিএইসএস কার্ড থাকলে।

কেন্দ্র সরকারের তরফে গুয়াহাটি এবং ডিব্রুগড়ে সিজিএইচএস ইউনিট রয়েছে, কথা ছিল শিলচরকেও এর আওতায় আনা হবে তবে সেটা এখনো হয়নি। রবিবার সংসদের বিশেষ অধিবেশনে শিলচরের সাংসদ রাজদীপ রায় অধ্যক্ষ ওম বিড়লার কাছে প্রশ্নটি তুলে ধরেন। পাশাপাশি স্পষ্ট বাংলায় ভাষণ দিয়ে একটি বিশেষ বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন শিলচরের সাংসদ।

তিনি প্রথমেই রবিবার রাতে লোকসভার বিশেষ অধিবেশন আয়োজন করার জন্য অধ্যক্ষ ওম বিড়লাকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, “ভারতের সংসদের ৭০ বছরের ইতিহাসে এমন নিদর্শন হয়তো আর পাওয়া যাবে না।”

এরপর তিনি সিজিএইচএসের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, “ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল গুয়াহাটি, ডিব্রুগড় এবং শিলচরে সিজিএইচএস ইউনিট গড়ে তোলা হবে। বাকি দুই জায়গায় এটি গড়ে উঠলেও শিলচর শহর এর থেকে বাদ পড়েছে। শিলচরকে ঘিরে পঞ্চাশ হাজার এমন ব্যক্তি রয়েছেন যারা সিজিএইচএস এবং ইসিএইচএস-এর আওতায় সুবিধা পাওয়ার যোগ্যতা রাখেন। অথচ কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে ইউনিট গড়ে না ওঠায় অনেকেই বঞ্চিত হচ্ছেন।”

 

Parliament session yday in LokSabha carried on well past midnight that also on a Sunday!Got scope to raise the issue ( ZERO HOUR) of starting the CGHS/ ECHS unit in Silchar at the earliest as desired by the Central Govt.

Posted by Dr. Rajdeep Roy on Sunday, September 20, 2020

 

এবছরের প্রথম দিকে রাজদীপ রায় শিলচরে সিজিএইচএস ইউনিট গড়ে তোলার দাবি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ হর্ষবর্ধনের কাছে একটি চিঠি লিখেছিলেন। এদিন ভাষণে এই প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “এলাকার সাংসদ হিসেবে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে এব্যাপারে লিখিত আবেদন জানিয়েছিলাম। এছাড়া তার সঙ্গে এই বিষয়ে বিস্তারিত কথা হয়েছে এবং তিনি আশ্বাস দিয়েছিলেন শিলচরে ইউনিট গড়ে তোলার কাজ শুরু হবে। আমরা চাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কাজটি শেষ হোক কেননা এতে অনেকেই লাভবান হবেন।”

এদিন সংসদে স্পষ্ট বাংলায় তার কথাগুলো তুলে ধরেন রাজদীপ। এর মাধ্যমে এক বিশেষ বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন তিনি।

Comments are closed.