Also read in

সেই উনিশের আন্দোলনকারী আজকের দিনে কি ভাবছেন? জানতে দেখুন ভিডিওটি

এই ভিডিওটির মাধ্যমে আমরা ১৯৬১ ইংরেজির ভাষা শহিদদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করছি। আমাদের প্রতিনিধির সঙ্গে শহিদ কানাইলাল নিয়োগীর পুত্রবধূ মধুমিতা নিয়োগী এবং ওই ‘উনিশের’ একজন আন্দোলনকারী জ্যোৎস্না চক্রবর্তীর সাক্ষাৎকারে অনেক অজানা তথ্য উঠে এসেছে। সেই অজানা তথ্যের মধ্যে একদিকে যেমন আছে শহিদদের প্রাপ্য সন্মান না পাওয়ায় ক্ষোভ তেমনি শহিদদের প্রতি অফুরন্ত ভালোবাসা দুটোই।

সাক্ষাৎকারে উনিশের না জানা কথা, বাংলা ভাষার প্রতি আমাদের প্রাণের টান, আজও চলতে থাকা আমাদের অস্তিত্বের লড়াই, উনিশে মে এলেই আমাদের শহিদ আর শহিদ দিবস নিয়ে আলোড়ন এগুলো স্থান পেয়েছে। গুলিবিদ্ধ হয়ে শহিদের মাটিতে লুটিয়ে পড়ার দৃশ্য যেমন জ্যোৎস্না চক্রবর্তী আজও ভুলতে পারেননি, তেমনি ভুলতে পারেননি সেই দিনের রেল লাইনে মাথা পেতে শুয়ে থাকার অদম্য সাহসপূর্ণ সেই মুহূর্তগুলো । আলাপচারিতায় মধুমিতা নিয়োগী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন যে বাংলা ভাষার শহিদ বীরেন্দ্র সূত্রধরের স্ত্রীকে একসময় সংসার চালাতে লোকের বাড়িতে বাসন মাজতে হয়েছিল। এটা আমাদের লজ্জা! বরাকের বাঙালির লজ্জা!

 


Comments are closed.