Barak Bulletin is a hyperlocal news publication which features latest updates, breaking news, interviews, feature stories and columns.
Also read in

"Rahul Roy is acting as BJP's agent and drowning Congress" rebel group takes a jibe

রাহুল রায় বিজেপির এজেন্ট হয়ে হাইলাকান্দিতে কংগ্রেসকে  ডোবাচ্ছেন: বিদ্রোহী গোষ্ঠী

 
পঞ্চায়েত ভোটের  মুখে  হাইলাকান্দি জেলা কংগ্রেসের আভ্যন্তরীণ কোন্দল  ফের মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। বিক্ষুব্ধ কংগ্রেসীদের দাবি,  রাহুল রায়ের নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস বিজেপির এজেন্ট হিসেবে কাজ করছে।। পঞ্চায়েত নির্বাচনে দলীয় টিকিট বন্টনে রাহুল রায়ের ভূমিকা নিয়েও তারা প্রশ্ন তুলে প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন ।

সোমবার জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে জেলা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল উদ্দিন লস্কর, প্রদেশ কংগ্রেস সদস্য আনাম উদ্দিন লস্কর, প্রদেশ কংগ্রেস সদস্য হিলাল উদ্দিন লস্কর , সম্পাদক নুরুল আমিন মজুমদার, জেলা কংগ্রেসের সহ সভাপতি সাহাব উদ্দিন চৌধুরী, জেলা কংগ্রেসের কার্যকরি সদস্য নুরুল হুদা চৌধুরী, প্রাক্তন আঞ্চলিক পঞ্চায়েত সদস্য আবুল হুসেন বড়ভুইয়া এবং হাইলাকান্দি ব্লক কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি দক্ষিণারঞ্জন চন্দ সহ আরও অনেকে সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে  জেলা কংগ্রেস সভাপতি রাহুল রায়কে একহাত নেন।

তারা  এদিন  অভিযোগ করে বলেন, প্রকৃত কংগ্রেস কর্মীদের বঞ্চিত করে স্বজনপোষণের মাধ্যমে যাকে তাকে দলীয় টিকেট দেওয়া হচ্ছে । আর এক্ষেত্রে একাংশ দালাল ব্যবসার অঙ্ক কসছেন বলে বিদ্রোহী গোষ্ঠীর অভিযোগ।  বিদ্রোহীদের মতে, রাহুল রায়ের এহেন একনায়কতান্ত্রিক মনোভাবের জন্য  হাইলাকান্দিতে কংগ্রেস ডুববে। তারা বলেন, এক শ্রেনীর দালাল কংগ্রেসের টিকেট দেওয়ার নামে রীতিমত ব্যবসার অঙ্ক কষছেন। । যার ফলে পুরনো  কংগ্রেস কর্মীরা দলীয় টিকেট প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

অপরদিকে  বহু নবাগত কংগ্রেস টিকিট পেয়ে যাচ্ছেন।  আর এভাবে চলতে  থাকলে পঞ্চায়েত নির্বাচনে হাইলাকান্দি কংগ্রেসের নিশ্চিত ভরাডুবি ঘটবে বলে বিদ্রোহী নেতারা মন্তব্য করেন ।  প্রদেশ কংগ্রেস  সদস্য আনাম উদ্দিন লস্কর  বলেন, গৌতম রায়ের নীরবতা আর রাহুল রায়ের স্বৈরাচারীতার জন্য হাইলাকান্দি কংগ্রেসের শ্মশানযাত্রা ঘটতে চলেছে। তাদের আরও  অভিযোগ, হাইলাকান্দি কংগ্রেসকে বাঁচানোর  জন্য দলের প্রবীণ নেতারা ইতিপূর্বে গোলাম নবি আজাদ এবং প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি রিপুন বরা সহ দলের প্রথম সারির নেতাদেরকে একাধিকবার অবগত করলেও বাস্তবে কিছুই হয় নি।  এমনকি কোর কমিটি এবং প্রার্থী মনোনয়ন কমিটিতে তাদের তরফে অধিক সদস্য নেওয়ার কথা থাকলেও তাও হয় নি।।

আনাম উদ্দিন লস্করদের আরও অভিযোগ, হাইলাকান্দির রায় পরিবার ভিত্তিক কংগ্রেস বিজেপির এজেন্ট হিসাবে কাজ করছে । পিতাপুত্র মিলে হাইলাকান্দি কংগ্রেসের সমাধি রচনা করছেন। সংখ্যালঘু ভোট কাটাকাটি করে বিজেপি প্রার্থীদের জেতানোর পরিকল্পনা মত কংগ্রেসের প্রার্থী দাড় করানো হচ্ছে বলে তারা অভিযোগ করেন।   তাদের  মতে,   হাইলাকান্দি কংগ্রেস বিজেপির এজেন্ট হিসাবে কাজ করছে। যারফলে দীর্ঘ পনেরো বছর ধরে কংগ্রেসের দখলে থাকা হাইলাকান্দি  জেলাপরিষদ এবার দলের হাতছাড়া হতে চলেছে। আর কংগ্রেসের এই পরিণতির জন্য তারা জেলাকংগ্রেস সভাপতি রাহুল রায়কে দায়ী করছেন। এই অবস্থায় হাইলাকান্দি কংগ্রেসকে বাঁচাতে হলে প্রদেশ কংগ্রেসকে সক্রিয় ভূমিকা নিয়ে হস্তক্ষেপ করতে হবে বলে বিদ্রোহী নেতারা জানান।  তারা বলেন, বিজেপির এজেন্টরা হাইলাকান্দি কংগ্রেস চালাচ্ছেন।

এদিকে  জেলাকংগ্রেস সভাপতি রাহুল রায় সাংবাদিকদের কাছে তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। কংগ্রেসের টিকিট বন্টনের নামে  আর্থিক লেলদেনের  উত্থাপিত অভিযোগ খণ্ডন করে বলেন,  এধরনের অভিযোগ প্রমাণিত হলে লেনদেনকারী উভয়পক্ষের বিরুদ্ধেই কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া  হবে ।

Comments are closed.