Also read in

Schools, Colleges in the state are opening from today , parents are hesitant

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর সরকারি নির্দেশে আজ সোমবার থেকে খুলছে স্কুল কলেজ। তবে, আসাম সরকার শুক্রবার স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে, বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতে আসা সবার জন্য বাধ্যতামূলক নয়। যে সব শিক্ষার্থীরা চাইবে, তাঁরাই আসবে।

এখনও রাজ্য তথা দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে, এর মধ্যেই স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নিল আসাম সরকার। কোভিড অতিমারীর কারণে প্রায় ছ’মাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে বিদ্যালয়গুলি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের আনলকের চতুর্থ পর্যায়ের নিয়ম মেনেই এবার খুলতে চলেছে স্কুল।

আসামের শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা শনিবার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “নবম, দশম, একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা কেবলমাত্র তাদের মা বাবার কাছ থেকে লিখিত সম্মতি পেলেই স্কুল / কলেজগুলিতে আসতে পারবে।”

বুধবার এই প্রক্রিয়াটির জন্য স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) প্রকাশের পরে, আসাম সরকার শুক্রবার স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে, বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতে আসা সবার জন্য বাধ্যতামূলক নয়। যে সব শিক্ষার্থীরা চাইবে তাঁরাই আসবে।

আপাতত সোমবার থেকে আগামী ১৫ দিনের জন্য এই নিয়ম চালু হল। তবে সামাজিক দূরত্ব এবং বিশেষ নিয়মবিধি বজায় রাখতে নবম এবং দ্বাদশ শ্রেণীর ক্লাস হবে সোমবার, বুধবার এবং শুক্রবার হবে; দশম এবং একাদশ শ্রেণির জন্য ক্লাস মঙ্গলবার, বৃহস্পতিবার এবং শনিবারে অনুষ্ঠিত হবে। স্কুলগুলিতে ৫০ শতাংশ শিক্ষক কর্মচারী উপস্থিত থাকবেন। প্রতিটি ক্লাসের জন্য শিক্ষার্থীদের দুটি ব্যাচে বিভক্ত করা হবে – প্রথম ব্যাচ সকাল ৯ টা থেকে ১২ টা এবং দ্বিতীয় ব্যাচটি ১ টা থেকে ৪ টে পর্যন্ত অংশ নেবে। পাঠদানের ক্ষেত্রে ২০ জনের বেশি পড়ুয়াকে একটি শ্রেণীতে বসানো যাবে না।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আসার ক্ষেত্রে মাস্ক পরিধানসহ অভিভাবকদের কাছ থেকে পড়ুয়াদের নিয়ে আসতে হবে লিখিত অনুমতি। সঙ্গে কোভিড প্রটোকল অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা করতে হবে হাত ধোয়ার জন্য সাবান এবং সেনিটাইজারের ; ব্যবস্থা রাখতে হবে থার্মাল স্ক্রীনিংর ও।

তবে, বর্তমান পরিস্থিতিতে কতজন অভিভাবক তাদের ছেলেমেয়েদেরকে স্কুলে পাঠাবেন, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

Comments are closed.