Also read in [multilanguage_switcher]

Udharbond TT Club, New USA, BUKSS to celebrate National Sports Day with various events

২৯ আগষ্ট দিনটি ভারতীয় ক্রীড়া জগতে যথেষ্ট গুরুত্ব রাখে। ২৯ আগস্ট হকি জাদুকর ধ্যানচাঁদের জন্মদিন। বিশেষ এই দিনটি গোটা দেশে পালন করা হয়ে থাকে জাতীয় ক্রীড়া দিবস হিসেবে। গোটা দেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের এই অঞ্চলেও প্রতিবছর জাতীয় ক্রীড়া দিবস পালন করা হয়ে থাকে। এবারও এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না। করোনাকালে সেরকম জাঁকজমক না হলেও বিভিন্ন ক্লাব-সংগঠন জাতীয় ক্রীড়া দিবস পালনের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। 

 

নবগঠিত উধারবন্দ ক্রীড়া সংস্থা এবারের জাতীয় ক্রীড়া দিবসকে স্মরণীয় করে তুলতে উধারবন্দের ক্রীড়া জগতের পাঁচ জন দিকপালকে সংবর্ধনা জানানোর উদ্যোগ নিয়েছে। রবিবার বিশেষ দিনটাতে বেলা ১২ টায় ব্লক অডিটোরিয়াম হলে এই সংবর্ধনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। এই প্রথমবারের মতো জাতীয় ক্রীড়া দিবস উদযাপন করতে যাচ্ছে ইউএসএ। যে পাঁচজনকে সংবর্ধনা জানানো হবে তারা হলেন, প্রাক্তন কবাডি খেলোয়াড় আজির উদ্দিন বড়ভূঁইয়া, ক্রীড়া সংগঠক অতুল চন্দ্র সিং, প্রাক্তন খেলোয়ার নিরঞ্জন শুক্লবৈদ্য, প্রাক্তন রেফারি ও সংগঠক নিরেশ্বর সিং এবং প্রাক্তন কবাডি খেলোয়াড় সাহাবুদ্দিন লস্কর। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শিলচরের সাংসদ রাজদীপ রায়, উধারবন্দের বিধায়ক মিহির কান্তি সোম এবং শিলচরের বিশিষ্ট সার্জন ড: সিদ্ধার্থ শংকর ভট্টাচার্য্য।

 

গত ১ আগস্ট ৪০ টির ও বেশি ক্লাব সংগঠন এর উপস্থিতিতে ইউএসএর নতুন কমিটি গঠিত হয়েছিল। ইতিমধ্যেই এলাকার পাঁচটি মাঠ সাফাই করা ছাড়াও সংবিধান সংশোধন করে নিয়েছে নতুন কমিটি। স্বাধীনতা দিবসে ইউ এস এর পক্ষ থেকে তিনটি মাঠে পতাকা উত্তোলন ও করা হয়েছে। এবার জাতীয় ক্রীড়া দিবসে পাঁচ দিকপাল কে সংবর্ধনা দেওয়ার পরিকল্পনা নিল তারা।

 

জাতীয় ক্রীড়া দিবস পালন করবে উধারবন্দের ই টেবিল টেনিস ক্লাব ও। তবে একটু ভিন্নভাবে। সম্প্রতি অকাল প্রয়াণ ঘটেছিল উপত্যকার প্রতিশ্রুতি সম্পন্ন প্যাডলার স্বর্ণদ্বীপা পালের। তাঁর স্মৃতিতে জাতীয় ক্রীড়া দিবসে টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতা করবে টি টি ক্লাব। আগামী রবিবার ক্রীড়া দিবসে একদিনের টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতা সদ্য প্রয়াত স্বর্ণদ্বীপা পালের স্মৃতিতে উৎসর্গ করা হয়েছে। ক্লাবের ইন্ডোর স্পোর্টস কমপ্লেক্সে প্রতিযোগিতা হবে ওপেন প্রতিযোগিতা। পুরুষ ও মহিলা, এই দু’টি ইভেন্ট থাকছে। উপত্যকার যে কোনও আগ্ৰহী প্যাডলার এতে অংশ নিতে পারবেন। শনিবার পর্যন্ত নাম লেখানো যাবে। ক্লাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য কোনও এন্ট্রি ফি লাগবে না। ওইদিন সন্ধ্যায় প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান হবে। করোনার জন্য বহুদিন ধরে খেলাধুলা বন্ধ হয়ে আছে। যদিও ক্লাবের অ্যাকাডেমি কোভিড বিধি মেনে ২ জুন থেকেই চালু হয়ে গিয়েছিল।

 

এদিকে, জাতীয় ক্রীড়া দিবসেই আনলক হচ্ছে শিলচর জেলা ক্রীড়া সংস্থা। ২৯ আগস্ট থেকে খুলবে এসএম দেব স্টেডিয়ামের তালা। করোনার জেরে গত ২৬ এপ্রিল সতীন্দ্র মোহন দেব স্টেডিয়ামের গেটে তালা ঝুলিয়ে ছিল শিলচর জেলা ক্রীড়া সংস্থা। তারপর থেকেই স্তব্ধ খেলাধুলা। এমনকি গেট বন্ধ থাকায় স্টেডিয়াম চত্বরেও কারোর প্রবেশের অনুমতি ছিল না। ‌ এরপর ১৮ জুলাই থেকে শুরু হবার কথা ছিল সংস্থার আনলক প্রক্রিয়া। কিন্তু একেবারে শেষ মুহূর্তে সেই পরিকল্পনা ও বাতিল হয়ে যায়। তবে এবার জাতীয় ক্রীড়া দিবসে শুরু হচ্ছে ডি এস এর মূলস্রোতে ফেরার লড়াই। রবিবার থেকে কোভিড প্রটোকল মেনে শুরু হবে সংস্থার ক্রিকেট, ব্যাডমিন্টন এবং টেবিল টেনিস অ্যাকাডেমির কোচিং। এজন্য শুক্রবার সংস্থার ইন্ডোর স্টেডিয়াম সেনিটাইজ করা হয়েছে। একসঙ্গেই স্টেডিয়াম চত্বরে মর্নিং ওয়াক করতে পারবেন জনসাধারণ। তবে সঙ্গে বাচ্চাদের আনতে পারবেন না।

 

জাতীয় ক্রীড়া দিবস পালন করবে বরাক উপত্যকা ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থা ও (বাকস)। সকাল সাতটা থেকে শুরু হবে সংবাদকর্মীদের জন্য হাঁটা প্রতিযোগিতা। এই মিডিয়া ওয়াকাথন সতীন্দ্র মোহন দেব স্টেডিয়াম থেকে শুরু হয়ে শহরের কয়েকটি রাস্তা পরিক্রমা করে আবার স্টেডিয়ামেই শেষ হবে। সেখানে পুরস্কার বিতরণ পর্বের মাধ্যমে শেষ হবে প্রথম দফার অনুষ্ঠান। এরপর বিকেল সাড়ে তিনটায় সংস্থা কার্যালয়ে থাকছে আলোচনা অনুষ্ঠান এবং পাঁচজন হকি খেলোয়াড়কে সম্মাননা প্রদান। আলোচনা সভায় নির্দিষ্ট বক্তা হিসাবে থাকবেন সিনিয়র হকি খেলোয়াড় তথা কোচ সঞ্জিত পাণ্ডে এবং বরাক উপত্যকা ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থার প্রাক্তন সভাপতি হিতব্রত ভট্টাচার্য।

Comments are closed.