Barak Bulletin is a hyperlocal news publication which features latest updates, breaking news, interviews, feature stories and columns.
Also read in

Tragic death of house wife, due to torn electric wire in Hailakandi district.

দক্ষিন হাইলাকান্দির অলইছড়ায় বিদুৎতের তার ছিঁড়ে এক গৃহবধূর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। শোকাবহ ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার সকালে, নিহত গৃহবধূর নাম সোমা দেব। বিদ্যুৎস্পৃষ্ট গৃহবধূকে কাটলিছড়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। জানা গেছে, বিদ্যুতের তার বাড়িতে ছিঁড়ে পড়ার ফলে সোমার স্বামী মিহির দেব এবং দেওর মলয় দেবও আহত হয়েছেন। ঘটনার সময়  ঘরে থাকা আর চার জনের পায়ে চটি থাকায় বরাত জোরে বেঁচে যান। আহত মলয় হাইলাকান্দি সিভিল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বলে জানা গেছে।

এদিন দুর্ঘটনার খবর পেয়ে কারিছড়া, মাধবপুর,অলইছড়া থেকে শতাধিক মানুষ ঘটনা স্থলে এসে ক্ষোভে ফেটে পড়েন এবং প্রতিবাদে ১৫৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন। খবর পেয়ে হাইলাকান্দি থেকে ছুটে আসেন পুলিশের প্রবেশনারি ডিএসপি ভার্ঘনমুনি দাস, কাটলিছড়ার মহকুমা শাসক তথা ম্যাজিস্ট্রেট জেমস আইন্ড, বিদুৎবিভাগের লালা সাবডিভিশনের বাস্তুকার সৌমিত্র সরকার প্রমুখ। তাদের  ঘটনা স্থলে দেখে জনতার উত্তেজনার পারদ চড়ে যায়। স্থানীয় জনতার পক্ষ থেকে নিহত গৃহবধূর পরিবারকে পঁচিশ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি উঠে । বিদ্যুৎ বিভাগের গাফিলতি,অবহেলার জন্য ওই মহিলার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে প্রতিবাদে সোচ্চার হন। তারা জানান, বিভাগীয় গাফিলতিতে বাড়ির চালে এগারো হাজার ভোল্টের তার সকাল নয়টায় আছড়ে পড়ে।তখন বাড়ির পেছনে মহিলা সোমা দেব রান্না ঘরের বাসন ধোয়ার কাজে ছিলেন, সেখানেই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। সেই তারের আওতায় অনেক বাড়ি ঘরের বৈদ্যুতিক সামগ্রী বিকল হয়েছে। প্রত্যেক বিদুৎগ্রাহকের বাড়িতে আতস বাজির মতো বিকট শব্দ হয়। মানুষ প্রাণ বাঁচাতে ঘর থেকে বের হন।

ক্ষতিপূরণের আশ্বাস লিখিত ভাবে দিতে বাস্তুকার সরকারকে ঘিরে ধরেন।বাস্তুকার সরকার আশ্বস্ত করে বলেন বিভাগীয় তরফে ক্ষতিপূরণ পাইয়ে দিতে সবধরনের সহযোগিতা করা হবে। তাছাড়া মহিলার দুই ছেলে বেঙ্গালুরুতে থাকেন। তাদের আজকের মধ্যে বাড়িতে আনার বিমান ভাড়া দেওয়ার দাবি তুলেন এলাকাবাসী । একসময় ছুটে আসেন বিধায়ক সুজাম উদ্দিন লস্কর। বিধায়ক সুজাম উদ্দিন লস্করের হস্তক্ষেপে অবশেষে বিভাগীয় এস ডি ও বি দাস, ছেলেদের ঘটনা স্থলে পৌঁছাতে বিমান ভাড়া মিটিয়ে দেন। বিধায়ক লস্কর ব্যাক্তিগত ভাবে পাঁচ হাজার টাকা প্রদান করেন। এবং এক সপ্তাহের মধ্যে সরকারি সাহায্য পাইয়ে দেবেন বলে আশ্বাস দেন। তারপর গৃহবধূর মরদেহ হাইলাকান্দি এস কে রায় সিভিল হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায় পুলিশ।

Comments are closed.